উচ্চতা অনুযায়ী ওজন কম?

প্রশ্ন: উচ্চতা অনুযায়ী ওজন কম, স্বাস্থ্য খারাপ, বন্ধুরা হাসাহাসি করে। তা ছাড়া প্রায়ই অসুস্থ থাকি। কীভাবে স্বাস্থ্য ভালো করতে পারি?

উত্তর: ওজন ঠিক আছে কি না, তা বুঝতে চিকিৎসকেরা একটি নির্দেশক ব্যবহার করেন, যার নাম বিএমআই বা বডি মাস ইনডেক্স। উচ্চতা অনুযায়ী ওজনের পরিমাপ এটা। যদি বিএমআই ঠিক থাকে তবে দেখতে শুকনো বা চিকন হলেও আপনি সুস্থ আছেন বলে ধরে নিতে হবে। তবে বিএমআই স্বাভাবিকের চেয়ে কম হলে আন্ডারওয়েট বা ভগ্নস্বাস্থ্যের অধিকারী বলা যায়। উচ্চতা, ওজন এবং কাজের ধরন বিবেচনায় প্রয়োজনীয় পুষ্টিচাহিদা সম্পর্কে জানতে একজন পুষ্টিবিদের পরামর্শ নিন। কিছু সাধারণ রোগের জন্য অনেক সময় ওজন কমে যেতে পারে। ডায়াবেটিস, থাইরয়েডের সমস্যা, পরিপাকতন্ত্রের সমস্যা বা কোনো দীর্ঘমেয়াদি রোগ আছে কি না, তা পরীক্ষা করে নিতে পারেন।

1
2
3

প্রশ্ন: খাবার রুচি ভালো এবং অনেক খাই। তবু ওজন বাড়ে না।

উত্তর: রুচি ভালো এবং যথেষ্ট খাবার খাওয়ার পরও ওজন কম থাকার কারণ হতে পারে অতিরিক্ত পরিশ্রম কিংবা সাধারণ কিছু রোগ। অন্তত ডায়াবেটিস ও থাইরয়েডের পরীক্ষা করিয়ে নিন। পরিশ্রম অনুযায়ী প্রতিদিনের খাদ্যতালিকা নির্ধারণ করুন। একটি সুষম খাদ্যতালিকায় আমিষ, শর্করা, চর্বি বা তেল ও ভিটামিন খনিজের সঠিক সমাহার থাকতে হবে।

4
5
6

প্রশ্ন: সামান্য চাপে, পরিশ্রম বেশি করলে বা ঠিকমতো ঘুম না হলে দ্রুত ওজন কমে যায় এবং স্বাস্থ্য ভেঙে পড়ে কেন?

উত্তর: সারা দিন যতই পরিশ্রম করুন না কেন, পরিপূর্ণ ঘুম হওয়াটা জরুরি। ঘুম অনেকটা ব্যাটারি চার্জ দেওয়ার মতো। সারা দিনের পরিশ্রমের পর এটি অত্যন্ত প্রয়োজনীয় শারীরবৃত্তীয় একটি প্রক্রিয়া। ঘুমের সময় হরমোনজনিত নানা প্রক্রিয়ার মাধ্যমে পুষ্টি উপাদানগুলো সঠিকভাবে কাজে লাগে। রোজ ছয় ঘণ্টা ঘুমালে আপনি সতেজ ও প্রফুল্ল থাকবেন।

7
8
9

প্রশ্ন: অল্প বয়স থেকেই খুব খারাপ স্বাস্থ্য। খেতে ইচ্ছে করে না এবং সামান্য খেলেই পেট ভরে যায়। কীভাবে স্বাস্থ্য বাড়াতে পারি?

উত্তর: নিজের জীবনের জন্যই আপনাকে খেতে হবে। প্রথমে আপনার বয়স, উচ্চতা, ওজন, কর্মপরিধি প্রভৃতির ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ক্যালরির পরিমাণ নির্ধারণ করতে হবে। সেই অনুযায়ী প্রতিদিনের খাবারের পরিমাণটাও ঠিক করে নিতে হবে। প্রয়োজনে অল্প অল্প করে বারবার খেতে হবে।

10
11
12

প্রশ্ন: স্বাস্থ্য বা ওজন বাড়ানোর কোনো ওষুধ আছে কি?

উত্তর: স্বাস্থ্য বা ওজন বাড়ানোর ওষুধ আপনার নিজের মধ্যেই রয়েছে। তা হলো সুষম খাদ্যাভ্যাস এবং রোজকার হালকা ব্যায়াম। প্রতিদিন অবশ্যই পর্যাপ্ত পরিমাণে আমিষজাতীয় খাবার গ্রহণ করবেন। খেতে ভালো না লাগলে কিছুদিন পরপর খাবারের রেসিপি বদলে নিতে পারেন। এ ছাড়া ছোটখাটো কোনো শারীরিক সমস্যা থাকলে চিকিৎসা করিয়ে নিন। বাজারের প্রচলিত টোটকা কবিরাজি ওজন বৃদ্ধির ওষুধ আসলে ক্ষতিকর। এ ধরনের বিজ্ঞাপনে ভুলবেন না।

Leave your vote

Comments

0 comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *