কাজ জমিয়ে না রাখার সহজ ১০টি উপায়

আমাদের রুটি রুজির প্রধান উৎস কাজ। কাজ না করলে কেউ বসিয়ে বসিয়ে খাওয়ায় না। অনিচ্ছা সত্ত্বেও আমাদের কাজ করতে হয়। তবে নানা কারণে আমাদের নির্ধারিত কাজ জমিয়ে ফেলি। এতে অপূরণীয় ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয় অনেক সময়।

আমরা কাজ জমিয়ে না রাখার সহজ ১০টি উপায় নিয়ে আপনাদের সামনে হাজির হয়েছি। এই উপায়গুলো আপনার কাজকে অনেকটা সহজ করে তুলবে। চলুন দেখে নিই তালিকাটি।

১. সময়ের কাজ সময়ে করা

সময়ের কাজ সময়ে না করলে স্বাভাবিকভাবেই কাজ জমে যাবে। কারণ আমাদের নির্দিষ্ট সময় এবং ক্যালেন্ডার মেনে কাজ করতে হয়। তাই হেলাফেলা না করে সময়ের কাজ সময়ে করুন।

২. কঠিন কাজ দিনের শুরুতে করা

দিন যতো বাড়ে আমাদের শরীর ও মন ক্লান্ত হতে থাকে। তাই কঠিন কাজ দিনের শুরু করলে সহজেই কাজগুলো সেরে নেওয়া যায়। আর বেলা বাড়ার সাথে সাথে কাজের গতিও কমে। ফলে গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলো জমতে জমতে পাহাড় হয়ে ওঠে।

৩. নির্দিষ্ট রুটিন মেনে চলা

আপনি যখন জানবেন প্রতিদিন নির্দিষ্ট কিছু কাজ করতেই হবে, তখন একটা রুটিন করে ফেলুন। রুটিনটি আপনাকে সময়ের কাজ সময়ে করে ফেলার কথা মনে করিয়ে দেবে। ফলে আপনার কোনো কাজ জমে থাকবে না।

৪. কাজকে ভাগ করে নেওয়া

সব কাজ একবারে করা শুরু করবেন না। আলাদা আলাদা ভাগ করে নিন। যেকাজগুলো হালকা সেগুলো শেষ বেলার জন্য রাখুন আর অন্যান্য কাজগুলো আগেভাগেই সেরে নিন। তাহলে কাজের চাপও কম মনে হবে এবং সব কাজও শেষ করা যাবে।

৫. অন্যের সাহায্য নেওয়া

একা একা কাজ নিয়ে যুদ্ধ করার চেয়ে অন্যের সাহায্য নিয়ে কাজগুলো সেরে নেওয়া যায় দ্রুত। তাই বুদ্ধি খাটান। আপনার কাজে কে কে সাহায্য করতে পারবে তার একটি তালিকা তৈরি করুন। এতে দ্রুত কাজগুলো শেষ করা যাবে। একই ভাবে আপনি ফ্রি থাকলে অন্যকেও সাহায্য করুন।

৬. কাজকে ফাঁকি না দেওয়া

মাস শেষে বেতন পাচ্ছেন, কিন্তু কাজে ফাঁকি দিয়ে ভাবছেন আপনি লাভবান হচ্ছেন। কিন্তু আপনি আসলে নিজেকে ফাঁকি দিচ্ছেন। আপনার কাজের উপর নির্ভর করেই প্রতিষ্ঠানের অগ্রগতি নির্ভর করে। এই অগ্রগতি হ্রাস পেলে তার প্রভাব আপনার উপরও পড়তে পারে। হারাতে পারেন চাকরিও।

৭. সকাল সকাল ঘুম থেকে ওঠা

আমরা বেলা করে ঘুম থেকে উঠি অনেকে। তাতে দিনের একটা বড় অংশ মাটি হয়। তাই ভোরে ভোরে ঘুম থেকে উঠুন, কাজ শেষ করার জন্য দীর্ঘ সময় পাবেন। ফলে দিন শেষে কাজ আটকে থাকবে না বা কাজ পড়ে থাকবে না।

৮. মনোযোগ দিয়ে কাজ করা

কাজে মনোযোগ না থাকলে কখনোই তা সময় মতো শেষ করা যায় না। সময় মতো শেষ করার জন্য আপনাকে অবশ্যই কাজে মনোযোগী হতে হবে। কাজে মনোযোগী হলে নির্দিষ্ট সময়ের আগেই কাজ শেষ করে ফেলা যায়।

৯. কাজে বিরতি নেওয়া

দীর্ঘক্ষণ টানা কাজে ডুবে থাকলে আপনার শরীর ও মস্তিষ্কে প্রচণ্ড ক্লান্ত হয়ে পড়ে। ফলে আপনার কাজের গতি কমে যায়। তাই কাজ করতে করতে বিরতি নেওয়াও জরুরি। একটু হাঁটুন কিংবা একাকী কোথাও দাঁড়িয়ে থাকুন কিছুক্ষণ।

১০. কাজের প্রতি যত্নশীল হওয়া

কাজের প্রতি যত্নশীলতা কাজকে সহজ করে দেয়। যারা কাজের প্রতি যত্নশীল নয়, তাদেরই কাজ জমে যায়। তাই যেকোনো কাজকে যত্ন নিয়ে করতে হবে। অন্যথায় আপনার কাজ জমে জমে হিমালয় হয়ে যাবে।

Leave your vote

Comments

0 comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *