ঘরকন্নার কাজে ত্বকের যত্ন

যাঁরা বাড়িতে নানা রকমের ধোয়া-মোছার কাজ করেন, তাঁদের প্রায়ই ত্বকে সমস্যা হয়। বারবার ত্বক আর্দ্র হওয়ার কারণে ছত্রাকের সংক্রমণ হয়। আবার ডিটারজেন্ট বা সাবান বেশি ব্যবহারের কারণে অ্যালার্জি, একজিমা, ডারমাটাইটিস হতে পারে। তাই বলে তো আর সব কাজ বন্ধ রাখা যায় না। তাহলে কীভাবে হাতের ত্বক রক্ষা করবেন?

* যাঁদের বেশি অ্যালার্জি বা একজিমার সমস্যা আছে, তাঁরা ধোয়াধোয়ির সময় হাতে গ্লাভস ব্যবহার করতে পারেন। কিচেন গ্লাভস পাওয়া যায়, যা বাসন-কোসন ধোয়ার সময় ব্যবহৃত হয়। আবার মাছ, মাংস বা সবজি কাটাকুটির সময় এটা নয়, পাতলা ডিসপোজেবল গ্লাভস ভালো। রান্না বা প্রস্তুতির সময় যত বেশি পারা যায়, হাত ব্যবহার না করে চামচ ব্যবহার করুন।

* খুব বেশি ক্ষারযুক্ত ডিটারজেন্ট বা সাবান ব্যবহার না করাই ভালো। বারবার গরম পানি দিয়ে হাত ধোয়াও খারাপ। ঠান্ডা পানি ব্যবহার করা ভালো। হালকা ক্ষারযুক্ত হ্যান্ডওয়াশ ব্যবহার করুন। যাঁদের ত্বক সংবেদনশীল, তাঁরা বাজারে হাইপো অ্যালার্জিক ও বাড়তি রং-সুগন্ধিবিহীন ডিটারজেন্ট খুঁজে বের করুন। বাথরুম পরিষ্কার করার সময় হাতে গ্লাভস পরে নেওয়া ভালো। কেননা টয়লেট পরিষ্কারকগুলোতে ক্ষার বেশি থাকে। অবশ্যই টয়লেট পরিষ্কারের গ্লাভস আলাদা থাকবে।

* রান্নাঘর বা কাপড়চোপড় ধোয়ার কাজ শেষে একটি শুষ্ক তোয়ালে দিয়ে ভালো করে হাত মুছে নিন। আঙুলের ফাঁকগুলো ভালো করে মুছবেন। এবার ভালো ময়েশ্চারাইজার লোশন লাগিয়ে নিন। ভারী অয়েল বেসড ময়েশ্চারাইজার যেমন ভ্যাসলিন এসব ক্ষেত্রে ভালো।

* যাঁদের নখের ফাঁকে প্রদাহ বা সংক্রমণ হয়, তাঁদের ধোয়ার কাজ শুরু করার আগেই নখের কোণে ভারী অয়েন্টমেন্ট লাগিয়ে নিতে হবে, যাতে ওই জায়গা বেশি না ভেজে।

Leave your vote

Comments

0 comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *