যৌন ক্ষমতা কমে যাবার কয়েকটি কারণ

স্বাভাবিক যৌন ক্ষমতা একটি প্রজাতি থেকে তার বংশধর তৈরির জন্য প্রয়োজনীয়। ভবিষ্যৎ বংশধর একটি প্রজাতিকে টিকিয়ে রাখার জন্য অপরিহার্য। বর্তমানে পরিসংখ্যান অনুযায়ী সারা বিশ্বে প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের মধ্যে কমপক্ষে ২০ শতাংশ মানুষ যৌন সমস্যার শিকার। এদের মধ্যে নারীদের তুলনায় পুরুষদের সংখ্যা বেশি।

এবার দেহ‘র পক্ষ থেকে পুরুষদের স্বাভাবিক ক্ষমতা হ্রাসের কিছু কারণ নিয়ে আয়োজন করা হয়েছে আজকের এই পর্ব। চলুন দেখে নেওয়া যাক কারণগুলো। এই কারণগুলো এড়িয়ে চলতে পারলেই বাড়বে আপনার ক্ষমতা

১. তামাক ও জর্দা-গুল ব্যবহারে যৌন ক্ষমতা কমে

যৌন ক্ষমতা

তামাকজাত বিড়ি-জর্দা, গুল-সিগারেট ফুসফুসের কার্যকারিতা কমিয়ে দেয়। এক শলাকা সিগারেটে কার্বন মনোক্সাইড, টার, সীসা, কার্বাইড, ভারী ধাতুসহ প্রায় ৩০০০ প্রকার ক্ষতিকর উপাদান বিদ্যমান। এছাড়াও তামাকজাত পণ্য ক্যানস্যারের সম্ভাবনাকেও বহুগুণ বাড়িয়ে তোলে। এর ফলে স্বাস্থ্যহানি ঘটে এবং শারীরিক দুর্বলতার সৃষ্টি হয়। এই সকল ক্ষতিকর পদার্থের কারণে সৃষ্টি হতে পারে হরমোনাল সমস্যা যার কারণে যৌনশক্তি কমে যেতে পারে। যারা প্রতিদিন ১০টার অধিক সিগারেট খেয়ে থাকেন, প্রতি বছর তাদের যৌন ক্ষমতা ৫—১০% করে হ্রাস পায়।

২. মাদক সেবন যৌন ক্ষমতা কমায়

যৌন ক্ষমতা

বর্তমান সমাজে মাদকের প্রচলন বেশ অহরহই বলা যায়। মদ, গাজা, হিরোইন, ফেন্সিডিল, কোকেন, ইয়াবা, প্যাডেডিন, ঘুমের ওষুধ, মারিজুয়ানা ইত্যাদি প্রচলিত নেশাজাত দ্রব্য। মদ্যপানের ফলে এসিডোসিস, লিভার সিরোসিস সহ বিভিন্ন সমস্যা দেখা দেয়। সকল ধরনের নেশাজাত দ্রব্যই প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে শরীরের ব্যাপক ক্ষতি সাধন করে। নেশার ফলে হরমোনাল ও মানসিক সমস্যা দেখা দিতে পারে যার কারণে যৌন ক্ষমতা হ্রাস পায়। প্রাপ্ত পরিসংখ্যান অনুযায়ী মাদকাসক্তদের যৌন ক্ষমতা ৫০—৭০ শতাংশ কমে যেতে পারে।

৩. অতিরিক্ত হস্তমৈথুন ও পর্নোগ্রাফির প্রতি আসক্তি

যৌন ক্ষমতা

স্বপ্নদোষ একটি স্বাভাবিক শারীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়া। কিন্ত হস্তমৈথুন নয়। অতিরিক্ত হস্তমৈথুনের কারলে যৌন সংবেদনশীলতা কমে যায়। সিমেনে স্পার্ম এর সংখ্যা হ্রাস পায়। আবার অতিরিক্ত পর্নোগ্রাফি অনেক সময় মানসিক অসুস্থতা ডেকে নিয়ে আসে যার কারণে বাস্তবে যৌন শক্তি কমে যেতে পারে।

৪. বিভিন্ন রোগ

যৌন ক্ষমতা

বেশ কিছু অসুখ রয়েছে, যেমন: শুক্রাশয়ের ক্যানস্যার, জেনিটাল হার্পিস, জেনিটাল আলসার, সিফিলিস, এইডস ইত্যাদির কারণে যৌনশক্তি হ্রাস পায়। এছাড়া অন্তঃক্ষরা গ্রন্থির টিউমার বা ক্যানসারও এই সমস্যার জন্য ক্ষেত্র বিশেষে দায়ী।

৫. মানসিক সমস্যা যৌন ক্ষমতা কমায়

যৌনতার সাথে মানসিকতা গভীরভাবে সম্পর্কযুক্ত। গবেষণায় দেখা গেছে কিছু মানসিক সমস্যার কারণে যৌনতা অনেক হ্রাস পেতে পারে যার মধ্যে ইনসোমনিয়া,দুশ্চিন্তা, উদ্বিগ্নতা, সিজোফ্রেনিয়া,ইত্যাদি বেশ কিছু অসুখে ব্যাহত হয় স্বাভাবিক জীবনযাপন এবং যার কারণে যৌন ক্ষমতা ও ইচ্ছে কমে যায়।

৬. ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

কিছু কিছু ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার কারণে যৌনশক্তি কমে যেতে পারে। এদের মধ্যে এন্টি সাইকোটিক ড্রাগস অন্যতম। আবার বিভিন্ন সময় সাময়িক উত্তেজনা বৃদ্ধির জন্য হাট-বাজার, কবিরাজি, প্রেসক্রিপশন বহির্ভূত অনেক ওষুধ মানুষ সেবন করে থাকে। কখনো কখনো এতে হিতে বিপরীত হয়। সাময়িকভাবে এইগুলো কার্যকরী হলেও দীর্ঘমেয়াদিভাবে কমিয়ে দিতে পারে যৌন সক্ষমতা।

৭. হরমোনাল পরিবর্তনেও যৌন ক্ষমতা কমতে পারে

যৌন ক্ষমতা

টিউমার /ক্যানসার/আঘাত এর কারণে কখনো কখনো প্রয়োজনীয় হরমোনের ঘাটতি দেখা দেয় যা যৌন ক্ষমতা কমানোর জন্য দায়ী। টেস্টোস্টেরন স্বাভাবিকভাবে পুরুষদের যৌন বৈশিষ্ট্য নিয়ন্ত্রণ করে থাকে যা শুক্রাশয়ে উৎপন্ন হয়। আবার এই হরমোন এর জন্য পিটুইটারি গ্রন্থির ভূমিকাও অপরিহার্য। এই হরমোনের ঘাটতির জন্য কমে যেতে পারে যৌন ক্ষমতা।

৮. সুষম খাবার গ্রহণ না করা

সুষম খাদ্যের মাধ্যমে দেহ গঠন ও স্বাভাবিক কাজকর্ম পরিচালনা করার জন্য যে শক্তি প্রয়োজন তা নিশ্চিত হয়। প্রয়োজনীয় খাদ্য, ভিটামিন ও খনিজ পদার্থের অভাবে কমে যেতে যৌন ক্ষমতা। সুস্থতার জন্য প্রতিদিন প্রোটিন, ভিটামিন, লিপিডসমৃদ্ধ সুষম খাবার গ্রহণ করা উচিত।

স্বাভাবিক যৌন ক্ষমতা প্রাপ্তবয়স্ক সকল পুরুষদেরই কাম্য। নিয়ম-নীতি, নৈতিকতা, সচেতনতা ও প্রয়োজনে চিকিৎসার মাধ্যমে এই সুস্থতা নিশ্চিত করা সম্ভব। প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া যেতে পারে।

জুয়েল/প্রবাচ/পলাশ

Leave your vote

-2 points
Upvote Downvote

Comments

0 comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *